সার্স-কভি-২ এর লোগো উইকিমিডিয়ার রঙে (ছবি: Geraki, সিসি-বাই-এসএ ৪.০)

উইকিমিডিয়া সম্প্রদায় যেকোনো দুর্যোগের সময়ই সঠিক তথ্যদান এবং ভুল তথ্য অপসারণের ক্ষেত্রে নির্ভরযোগ্য তথ্যের ভাণ্ডার হিসেবে কাজ করে থাকেন। বর্তমানে (২০২০) নভেল করোনাভাইরাসের (SARS-CoV-2 বা সার্স-কভি-২) ফলে সৃষ্ট কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারীর ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

গত ৩১ ডিসেম্বর চীনে নতুন এক ধরণের নিউমোনিয়ার ঘটনা শোনা যায়। এর মাত্র ৫ দিনের মাথায় ইংরেজি উইকিপিডিয়ায় এ বিষয়ক (2019–20 coronavirus pandemic) নিবন্ধ তৈরি হয়। ধীরে ধীরে অন্যান্য ভাষার উইকিপিডিয়াতেও এই বিষয়ক নিবন্ধ তৈরি হতে থাকে। তৈরি হয় করোনাভাইরাস রোগ ২০১৯, অঞ্চলভিত্তিক কোভিড-১৯-এর প্রকোপ সংক্রান্ত বিভিন্ন নিবন্ধ।

বাংলা উইকিপিডিয়ায় ‘করোনাভাইরাস রোগ’ বিষয়ক নিবন্ধ

শুধু এতেই সীমাবদ্ধ থাকেনা, বরং কোভিড-১৯-এর প্রভাব অর্থনীতি, সমাজ ইত্যাদি খাতে কীরকম, সে বিষয়েও নিবন্ধ তৈরি হতে থাকে। ইংরেজি উইকিপিডিয়ায় সর্বপ্রথম চালু হয় উইকিপ্রকল্প কোভিড-১৯, এরপরে বাংলা উইকিপিডিয়াতেও এ বিষয়ক সঠিক তথ্যের অভাব উপলব্ধি করে এবং কাজের ব্যাপকতার মধ্যে সমন্বয় ঘটানোর জন্য কোভিড-১৯ বিষয়ক প্রকল্প চালু করা হয়। প্রকল্পের মাধ্যমে অধিক গুরুত্বপূর্ণ অধিকাংশ নিবন্ধ (কোভিড-১৯ টিকা, কোভিড-১৯ পরীক্ষা, আইসোলেশন বা বিচ্ছিন্নকরণ ইত্যাদি) বাংলা ভাষায় তৈরি করা হয়।

তথ্যের প্রয়োজনীয়তা অনুসন্ধানের সংখ্যা দেখেই বুঝতে পারা যায়। ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করোনাভাইরাস নিবন্ধটি শেষ ২১ দিনে প্রায় এক লক্ষ আটাশি হাজার নয়শ’ দশ বার সার্চ বা অনুসন্ধান করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস নিবন্ধের অনুসন্ধান সংখ্যা।

উইকিপিডিয়ার অবদানকারীরা শুধুমাত্র লেখাই নয়, বিভিন্ন চিত্র, মানচিত্র তৈরিতেও নিরলস অবদান রাখেন। যেহেতু এ বিষয়ক তথ্য প্রতিদিন পরিবর্তিত হচ্ছে, স্বেচ্ছাসেবকদের অকল্পনীয় পরিমাণের কাজ জমা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। বলাই বাহুল্য, তারা দক্ষভাবে সে কাজ করে যাচ্ছেন। চারিদিকে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত গুজব, ভুল তথ্য এবং ষড়যন্ত্র তত্ত্বের মাঝে সঠিক তথ্য প্রদান “যে কেউ অবদান রাখতে পারে” এরকম একটি মুক্ত বিশ্বকোষের ক্ষেত্রে অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। কিন্তু উইকিমিডিয়ানরা নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে ভুল তথ্য ঘেঁষতে দিচ্ছেন না। এমনকি কোভিড-১৯ বিষয়ক ভুল তথ্য নিয়ে পৃথক একটি নিবন্ধও রয়েছে।

উইকিপিডিয়ার সহপ্রকল্প উইকিউপাত্তেও অনুরূপ প্রকল্প খোলা হয়, যেখানে কোভিড-১৯ বিষয়ক তথ্যাবলী নিয়মিত হালনাগাদ করা হয়ে থাকে। কোভিড-১৯-এর যাবতীয় গবেষণা পত্রিকার তালিকা সেখানে রয়েছে। ইংরেজি, বাংলার পাশাপাশি অন্যান্য আরো কিছু ভাষার উইকিপিডিয়াতেও উইকিপ্রকল্প চালু করা হয়েছে।

উইকিপিডিয়ার অপর সহপ্রকল্প কমন্স, যা কিনা ছবি নিয়ে কাজ করে, সেখানেও চলছে কোভিড-১৯-এর নথিবদ্ধ করার কাজ। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্‌থের মত নির্ভরযোগ্য উৎস থেকে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত উচ্চমানের ছবি রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে নিয়মিত। কোভিড-১৯ রোগের উপসর্গ এবং সতকর্তা বিষয়ক ছবি বিশটিরও বেশি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।

তবে উইকিমিডিয়ানদের সতর্কতার সাথে বাসায় থাকা অন্য সকলের মতই জরুরি। আর তাই উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন থেকে অফলাইন কর্মকাণ্ড বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। উইকিমিডিয়া বাংলাদেশও পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত কর্মশালা, অনুষ্ঠান ইত্যাদি যাবতীয় আয়োজন বন্ধ করেছে। তবে অনলাইন আয়োজনে বাধা নেই, তাই বাংলা উইকিপিডিয়ায় আয়োজন করা হয়েছে বিশেষ অনলাইন এডিটাথন, যার অন্যতম লক্ষ্য মানুষকে বাসায় রাখতে আগ্রহী করে তোলা।

Translate »
Share This