উইকিম্যানিয়া ২০১৮-এর অংশগ্রহণকারীরা। ছবি: আর বোসফ/সিসি-বাই-এসএ ৪.০

উন্মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ার বার্ষিক সম্মেলন উইকিম্যানিয়ার চলতি বছরের আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে। ১৪তম এ আয়োজনের মূল সম্মেলন শুরুর আগে ১৮ জুলাই থেকে অনুষ্ঠিত হয় দুইদিনের প্রাক-সম্মেলন। প্রাক-সম্মেলনে উইকিপিডিয়ার বিভিন্ন কারিগরি বিষয়গুলোর সমাধানে অনুষ্ঠিত হয় কারিগরি হ্যাকাথন। একই সময়ে চলে উইকিপিডিয়ানদের জন্য লার্নিং ডে আয়োজন। পাশাপাশি ‘হুজ নলেজ’র আয়োজনে ‘ডিকলোনাইজিং দ্য ইন্টারনেট কনফারেন্স’ শীর্ষক বিশেষ সম্মেলনও অনুষ্ঠিত হয় একই সময়ে। এ সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্যবহারকারীদের উন্মুক্ত ইন্টারনেট, কনটেন্টসহ নানা বিষয়ে কতটা ব্যবহারের সুযোগ থাকছে সেটি নিয়ে আলোচনা করা হয়। সম্মেলনটির সহ-আয়োজক হুজ নলেজের কো-ডাইরেক্টর সিকো বৌট্রেস বলেন, ‘সকলের জন্য উন্মুক্ত কনটেন্টই শুধু নয় যাতে করে সকলের অংশগ্রহণে সে কনটেন্ট তৈরি হয় সে বিষয় নিশ্চিত করার বিষয়ে আমরা কাজ করছি। এর মধ্যে উইকিপিডিয়া বেশ এগিয়ে আছে যেখানে সারাবিশ্বের বিভিন্ন দেশের নারী, পুরুষ কাজ করে যাচ্ছে।’

প্রাক সম্মেলনের অন্যতম আয়োজন হিসেবে মূল ভেন্যুর পাশে সান স্কয়ার কেপটাউন সিটিতে অনুষ্ঠিত হয় উইকিপিডিয়া এডুকেশন নিয়ে বিশেষ আয়োজন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ ও স্কুলে উইকিপিডিয়া এডুকেশন প্রোগ্রাম চালুর বিষয়ে বিশেষ উপস্থাপনা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে উইকিপিডিয়া এডুকেশনের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার নিকোল সাদ বলেন, উইকিপিডিয়া শিক্ষারই একটি অংশ। তাই উইকিপিডিয়া এডুকেশন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এ প্রকল্পটি চালিয়ে যাচ্ছে।’ বাংলাদেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রকল্প চালুর ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার কথা জানান তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার উইকিম্যানিয়া সম্মেলনে বাংলাদেশের উইকিপিডিয়ানগণ। ছবি: উইকিমিডিয়া বাংলাদেশ

চলতি বছর সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সক্রিয় উইকিপিডিয়ানরা যোগ দিয়েছেন। ১৯ জুলাই প্রাক-সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে হ্যাকাথন, বিভিন্ন চ্যাপ্টার এবং ইউজার গ্রপের আলোচনা, উইকিপিডিয়া লাইব্রেরী নিয়ে আয়োজন, কপিরাইট ইউজার রাইটস বিষয়ক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। চলতি বছর মূল সম্মেলন ও হ্যাকাথন কেপটাউনের সাউর্দান সান কেপ সান হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। তিনদিনের উইকিম্যানিয়ার মূল সম্মেলন শুরু হয় ২০ জুলাই।

প্রাক-সম্মেলনের শেষ দিনে পানির নানা সমস্যা নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় বিশেষ কারিগরি হ্যাকাথন। মূলত কেপটাউনে পানির সমস্যা সমাধানে প্রযুক্তি কিভাবে সাহায্য করতে পারে হ্যাকাথনে সে বিষয়ের উপর জোর দেওয়া হয়। হ্যাকাথনে বিভিন্ন দেশের উইকিপিডিয়ানরা যোগ দেন। এর আগে সম্মেলন কেন্দ্রে সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে বিশেষ পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূল বিষয় উপস্থাপন করেন কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি ও মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম অব আর্টের প্রধান ডিজিটাল কর্মকর্তা শ্রী শ্রীনাবাসন। তিনি বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া এখন আর শুধুমাত্র শখের বশে ব্যবহারের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। এর ব্যাপ্তি অনেক বেড়েছে এবং কিভাবে নানা ধরনের কনটেন্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় আরো বেশি ছড়িয়ে দেওয়া যায় সে বিষয়গুলো জানার উপরও গুরুত্ব দেন তিনি। এছাড়া সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন ধরনের বিষয়ের কারিগরি বিষয়গুলো তুলে ধরার পাশাপাশি নানা ধরণের টিপসও দেন তিনি। অনুষ্ঠানে সোশ্যাল মিডিয়াতে উইকিপিডিয়ার উপস্থিতি এবং এর নানা দিক নিয়ে বর্ণনা করেন কলম্বিয়া জার্নালিজম স্কুলের শিক্ষক ও সক্রিয় উইকিপিডিয়া সম্পাদক এন্ড্রু লি।

উইকিম্যানিয়ার মূল আয়োজন

চলতি বছর দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে ১৪তম এ আয়োজনের মূল সম্মেলনটি চলে ২২ জুলাই পর্যন্ত। সম্মেলনের উদ্বোধনে আফ্রিকার বিভিন্ন অঞ্চলে উইকিপিডিয়ার নানা কার্যক্রম তুলে ধরা হয়। সম্মেলনের আয়োজক উইকিমিডিয়া দক্ষিণ আফ্রিকার সভাপতি ডগলাস স্কট বলেন, ‘উন্মুক্ত কনটেন্ট এবং সহজ ব্যবহারের জন্য আফ্রিকার বিভিন্ন স্কুলে ইতিমধ্যে উইকিপিডিয়া বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। একইভাবে বিভিন্ন অঞ্চলেও এটি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে।’ প্রথম দিনে ‘উইকিপিডিয়া ২০৩০’ শীর্ষক কার্যক্রমের ওয়ার্কিং গ্রুপের নির্বাচিত সদস্যদের অংশগ্রহণে বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে এ গ্রুপের ভবিষ্যৎ কাজ এবং সে বিষয়ে বিস্তারিত পরিকল্পনা করা হয়। বাংলাদেশ থেকে ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য হিসেবে এ প্রতিবেদক নির্বাচিত হয়েছেন।

সম্মেলনের প্রথম দিনে ছোট ছোট উইকিপিডিয়া কমিউনিটির জন্য কারিগরি টুলস, উন্মুক্ত ছবির ভান্ডার উইকিমিডিয়া কমন্স, গ্যালারি, লাইব্রেরি, আর্কাইভস, মিউজিয়াম (জিএলএএম) এবং উইকিড্যাটা নিয়ে বিভিন্ন সেশন অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া কিভাবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স  ব্যবহার করে উইকিপিডিয়ার ব্যবহার আরো সহজ করা যায় সে বিষয়েও কারিগরি পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম দিন বিকেলে অক্সফোর্ড ইন্টারনেট ইন্সটিটিউটের ড্যাটা সাইন্টিস্ট ড. মার্টিন ডিটুস ‘ক্রিয়েটিং নলেজ ইক্যুয়েটি অ্যান্ড স্পার্শিয়াল জাস্টিস অন উইকিপিডিয়া’ শীর্ষক বিশেষ উপস্থাপনা দেন।

এবারের সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে উইকিমিডিয়ার স্টুয়ার্ড ও উইকিমিডিয়া বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক নাহিদ সুলতান, উইকিমিডিয়া কমন্সের প্রশাসক মহীন রীয়াদ, বাংলা উইকিপিডিয়ার প্রশাসক মো. ইব্রাহিম হোসেন, সক্রিয় উইকিপিডিয়ান আফিফা আফরিন এবং বাংলা উইকিপিডিয়ার প্রশাসক ও উইকিমিডিয়া বাংলাদেশের নির্বাহী পরিষদের সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী যোগ দিয়েছেন। এছাড়া সাঁওতালি ভাষার উইকিপিডিয়ার অন্যতম প্রধান অবদানকারী মানিক সরেন যোগ দিয়েছেন সম্মেলনে।

চলতি বছর উইকিপিডিয়া লাইব্রেরি নিয়েও ছিল একাধিক আয়োজন। উইকিপিডিয়া লাইব্রেরির সমন্বয়ক ফেলিক্স নার্টি বলেন, উইকিপিডিয়ানদের সহযোগিতা করতে সারাবিশ্বের নানা লাইব্রেরির সাথে কাজ করছি আমরা। বাংলাদেশে উইকিপিডিয়া লাইব্রেরি প্রকল্প চালুর বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার কথা জানান তিনি।

এবারের সম্মেলনের মধ্যেই ১৮ জুলাই ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়াত সাবেক প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলার ১০০তম জন্মদিন। আর এ বিষয়টিকে মাথায় রেখে ম্যান্ডেলার হাতের লেখা ১৯৬২ সালের একটি ডায়রি যুক্ত হয় উইকিমিডিয়া কমন্সে। উন্মুক্ত লাইসেন্সে যুক্ত হওয়ার ফলে এখন থেকে যে কেউ চাইলে ম্যান্ডেলার হাতে লেখা এ ডায়রির চিঠিগুলো কপিরাইট মুক্ত হিসেবে সহজে পড়তে, ব্যবহার করতে পারবেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন ২১ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। যৌথভাবে এ ঘোষণা দেয় চলতি বছরের উইকিম্যানিয়ার আয়োজক উইকিমিডিয়া দক্ষিণ আফ্রিকা ও নেলসন ম্যান্ডেলা ফাউন্ডেশন। ৮৭ পৃষ্ঠার হাতে লেখা ম্যান্ডেলার নানা বিষয় রয়েছে ডায়রিতে। এছাড়া সম্মেলনের প্রথম দিনে গুরুত্বপূর্ণ নানা সেশনের পাশাপাশি বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় উইকিপিডিয়া এশিয়ান দেশগুলোর উইকিপিডিয়া সম্পাদকদের বিশেষ আলোচনা। এতে সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী এশিয়ার বিভিন্ন দেশের উইকিপিডিয়া সম্পাদকেরা যোগ দেন। সভায় ২০২০ সালে বাংলাদেশে উইকিমিডিয়া দক্ষিণ এশিয়া সম্মেলনের আয়োজনের ব্যাপারে আলোচনা হয়।

উইকিম্যানিয়াতে এশিয়ার উইকিপিডিয়ানরা। ছবি: মানিক সারেন/সিসি-বাইএসএ ৪.০

সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে উইকিমিডিয়া গবেষণা নিয়ে বিশেষ পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশ্বের বিভিন্ন ভাষার উইকিপিডিয়ার নানা বিষয় তুলে ধরা হয়। এছাড়া উইকি উইমেন, ইন্টেলুকচুয়াল প্রপার্টি এবং জিএলএএম বিষয়ে একাধিক সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। চলতি বছর উইকিম্যানিয়ায় অফলাইনে কিভাবে উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা যায় সে বিষয়ে একটি চুক্তি অনুষ্ঠিত হয়। প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এবং অফলাইনে নানা ধরণের কনটেন্ট ব্যবহারের সুবিধা প্রদানকারী কিউইক্সের সাথে সম্পাদিত এ চুক্তির ফলে ইন্টারনেট ছাড়াও উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা যাবে। এছাড়া উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের সাবেক পরিচালনা পর্ষদ সদস্য এবং স্বাস্থ্য বিষয়ক উদ্যোগ উইকিমিডিয়া ম্যাড প্রকল্পের অন্যতম সদস্য ডা. জেমস বাংলাদেশকে সহজে ইন্টারনেট ছাড়া উইকিপিডিয়া ব্যবহারের জন্য নিজের তৈরি ‘ইন্টারনেট ইন এ বক্স’ উপহার দিয়েছেন। এ যন্ত্রের সাহায্যে ইন্টারনেট ছাড়াই উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা যাবে।

বিভিন্ন ধরনের লাইব্রেরির সাথে সহজে উইকিপিডিয়া যুক্ত করার বিষয় নিয়েও অনুষ্ঠিত হয়েছে একাধিক সেশন। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন বিকেলে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ক্যাথেরিন মাহের ‘উইকিমিডিয়া অ্যান্ড দ্য স্পিরিট অব উবুন্টু: দ্য পাওয়ার অব ইউনিটি এন অ্যাকশন’ শীর্ষক বিশেষ প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এছাড়া বাংলা উইকিপিডিয়ায় কাজ করা বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের উইকিপিডিয়া সম্পাদকদেরও বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সুইডেনে পরবর্তী সম্মেলন

২০১৯ সালে সুইডেনে ১৫তম উইকিম্যানিয়া সম্মেলনের ঘোষণার মধ্য দিয়ে শেষ হয় চলতি বছরের উইকিম্যানিয়া সম্মেলন। সম্মেলনের শেষ দিন ২৩ জুলাই সমাপনী পর্বে বিশেষ উপস্থাপনা দেন উইকিপিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা জিমি ওয়েলস। তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিকভাবে উইকিপিডিয়া শুধুমাত্র নির্ভরযোগ্য কনটেন্ট তৈরিতেই সীমাবদ্ধ নয় এখন। নানা ধরণের ওপেন মুভমেন্ট এবং উন্মুক্ত দুনিয়ায় পথ রোধ করে এমন কাযর্ক্রমগুলোর ক্ষেত্রেও উইকিপিডিয়ায় কাজ করা সকলে একসাথে কাজ করছে।’ পরে তিনি চলতি বছরের বর্ষসেরা উইকিমিডিয়ান হিসেবে রাশিয়ার ফরহাদ ফাতকুলিনের নাম ঘোষণা করেন। এছাড়াও বর্ষসেরা উইকিমিডিয়ান (বিশেষ সম্মাননা) হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন উইকিমিডিয়া বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক নাহিদ সুলতান এবং ইংরেজি উইকিপিডিয়া সম্পাদক জেস ওয়েড।

দক্ষিণ আফ্রিকার উইকিম্যানিয়া সম্মেলনে বাংলা উইকিপিডিয়ানগণ। ছবি: উইকিমিডিয়া বাংলাদেশ

সম্মেলনের শেষ দিনের প্রথম পর্বে এমআইটি ল্যাবের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) গবেষক ড. জয় ভোলামউইনি ‘দ্য ডেঞ্জারাস অব সুপ্রিম হোয়াইট ডেটা অ্যান্ড দ্য কোডেড গ্যাজ’শীর্ষক বিশেষ প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এতে তিনি এআই ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের তথ্য প্রকাশ এবং সেগুলোর ভিন্ন ভিন্ন ব্যবহার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। জর্জিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি থেকে স্নাতক সম্পন্ন করা জয় অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি স্নাতকোত্তর এবং এমআইটি থেকে এআই বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। আর পরবর্তীতে এমআইটি মিডিয়া ল্যাবে এআই নিয়ে গবেষণা শুরু করেন। নিজের উপস্থাপনা শেষে তিনি অংশগ্রহণকারীদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন।

এছাড়া উইকিপিডিয়া জেন্ডার গ্যাপ নিয়ে বিশেষ গবেষণা তথ্য উপস্থাপন নিয়ে বিশেষ সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ভাষা সংরক্ষণের বিশেষ উদ্যোগ ‘উইকি ট্যাংস’ নিয়ে বিশেষ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উল্লেখ করা হয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ভাষা সংরক্ষণের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে। আর ভাষা সংরক্ষণ এবং সেগুলোকে উন্মুক্ত লাইসেন্সে ছড়িয়ে দিতে কাজ করছে উইকি ট্যাংস। বাংলাদেশেও বিভিন্ন ভাষা সংরক্ষণে উইকিট্যাংস প্রকল্পটি কাজ করবে। এ বিষয়ে উইকিট্যাংস-এর পরিচালক ডেনিয়েল বোগরে উডেল বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে আগামী ১৮ বছরের মধ্যে সারাবিশ্বের ৩ হাজার ভাষা হারিয়ে যাবে। আমরা সেটা চাই না। ভাষা এমন একটা জিনিস যা সংরক্ষিত থাকা উচিত।’ বাংলাদেশেও ভাষা সংরক্ষণে উইকিট্যাংকস কাজ করবে বলেও জানান ডেনিয়েল।

সমাপনী অনুষ্ঠানে আফ্রিকার ঐতিহ্যবাহী গান পরিবেশন করেছেন আফ্রিকার একদল শিল্পী। পরে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ক্যাথেরিন মাহের সম্মেলন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কমিটি ও সদস্যদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বিশেষভাবে প্রোগ্রাম কমিটির সদস্যদের নাম উল্লেখ করেন। এ কমিটিতে বাংলাদেশ থেকে এ প্রতিবেদক সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সম্মেলন শেষে আগামী বছরের উইকিম্যানিয়া উপলক্ষ্যে বিশেষ উপস্থাপনা দেয় উইকিমিডিয়া সুইডেনের পরিচালনা পর্ষদ সদস্যরা।

Translate »
Share This