ছবি: সম্মেলনের দলগত ছবিটি তুলেছেন রাসমাত/সিসি-বাই-এসএ ৪.০

গত মে মাসের ৫-৬ তারিখে ইন্দোনেশিয়ার বালি শহরে অনুষ্ঠিত হয় দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশসমূহের উইকিমিডিয়ানদের সম্মেলন, যার পোশাকী নাম ‘ইএসইএপি সম্মেলন ২০১৮’। আমেরিকা, ইউরোপ ও মধ্য এশিয়া অঞ্চলের উইকিমিডিয়ানরা বেশ অনেক বছর ধরে তাদের মধ্যকার সহযোগিতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে কর্মদক্ষতা বাড়াতে নিজ নিজ অঞ্চলে সম্মেলনের আয়োজন করে আসছেন। কিন্ত এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে এধরণের কোনো উদ্যোগ না থাকায় বিগত দিনগুলোতে এশীয় উইকিমিডিয়ানরা এজাতীয় উদ্যোগের ব্যাপারে আলোচনা করেন, যার ফলে এই সম্মেলনটা বাস্তব রূপ লাভ করে।

দুই দিনব্যাপী ইএসইএপি সম্মেলনে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার প্রায় ১৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলের প্রায় ৫৫জন উইকিমিডিয়ান অংশগ্রহণ করেন। সম্মেলনের আয়োজক উইকিমিডিয়া ইন্দোনেশিয়া। এ অঞ্চলের অধিকাংশ উইকিমিডিয়া সংস্থা কিংবা উইকিমিডিয়ানরা কর্মকাণ্ড পরিচালনার দিক থেকে খুব একটা অভিজ্ঞ নয়, ফলে তাদের মধ্যে সহযোগিতা বাড়িয়ে ও নতুন উদ্যোগের সৃষ্টি করে কিভাবে এই অঞ্চলের উইকিমিডিয়া আন্দোলনকে সম্প্রসারিত করা যায়, সে বিষয়ে বিভিন্ন সেশন ও আলোচনা হয়।

সম্মেলনে অ্যাফকম সদস্য তানভির মোর্শেদ। ছবি: রাসমাত/সিসি-বাই-এসএ ৪.০

সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে উইকিমিডিয়া বাংলাদেশের কোষাধ্যক্ষ তানভির মোর্শেদ উইকিমিডিয়ার অ্যাফিলিয়েশন্স কমিটির প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেন। এছাড়া সম্মেলনে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকজন স্টাফ যোগদান করেছিলেন। তাদের মধ্যে ছিলেন অনুদান বিভাগের ক্যাসি হেরোল্ড, পাবলিক পলিসি বিষয়ক কর্মকর্তা ইয়ান গেল প্রমুখ।

উইকিমিডিয়া সংস্থাসমূহ কিভাবে নিজেদের সংগঠিত করে নিজ অঞ্চলে উইকিমিডিয়া আন্দোলনের সম্প্রসারণের মাধ্যমে মুক্ত শিক্ষার বিস্তার ঘটাতে পারে এবং সেক্ষেত্রে অ্যাফিলিয়েশন্স কমিটি কী ধরণের সহযোগিতা করে – এ নিয়ে তানভির একটি সেশন উপস্থাপনা করেন। ইউজার গ্রুপ বা চ্যাপ্টারের গঠন বা তাদের উন্নয়নে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের সহযোগিতার বিভিন্ন দিক এবং সংস্থা গঠন ছাড়াও  উইকিমিডিয়া আন্দোলনের বিস্তার ঘটানোর সম্ভাব্যতা নিয়ে সেখানে তিনি বক্তব্য রাখেন। ফাউন্ডেশনের ক্যাসি হেরোল্ড অনুদান প্রোগ্রাম নিয়ে আলোচনা করেন। ইয়ান গেল এশিয়া অঞ্চলের জননীতি এবং উইকিমিডিয়া আন্দোলনের অগ্রসরের ক্ষেত্রে এসব নীতিকে কাজে লাগানোর কৌশল আলোচনা করেন।

সম্মেলনের লগো, উইকিমিডিয়া কমন্স।

অংশগ্রহণকারীদের অনেকেই তাদের নিজ দেশে সাম্প্রতিক উইকিমিডিয়া কার্যক্রম এবং সেসব থেকে প্রাপ্ত অভিজ্ঞতার বর্ণনা দেন।অংশগ্রহণকারী উইকিমিডিয়ানরা যেহেতু সামগ্রিকভাবে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার অন্তর্গত, তাই তাঁদের মধ্যে রয়েছে অভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক নৈকট্য এবং পরিচিতি। ফলে এই নৈকট্য কাজে লাগিয়ে কিভাবে সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র উন্মোচন করা যায়, তা নিয়ে বিস্তর আলোচনা হয়। সম্মেলনের প্রথম দিন শেষে আয়োজকরা অংশগ্রহণকারীদের বালির একটি নাট্যশালায় নিয়ে যান, সেখানে উইকিমিডিয়ানরা স্থানীয় কেচাক নৃত্য উপভোগ করেন। এই নৃত্য ঐতিহ্যগতভাবে জনপ্রিয় এবং রামায়ণের কাহিনী উপজীব্য করে রচিত।

সেশন ও আনুষ্ঠানিক প্রোগ্রাম ছাড়াও সম্মেলনের বিভিন্ন পর্যায়ে উইকিমিডিয়ানরা নিজেদের মধ্যে অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন এবং এ অঞ্চলের ভবিষ্যৎ উইকিমিডিয়া আন্দোলন নিয়ে আলোচনা করেন। ২০১৯ সালে অস্ট্রেলিয়ার পার্থ শহরে এ সম্মেলন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

Translate »
Share This